• এপ্রিল ২০, ২০২৪ ৩:৫৩ অপরাহ্ণ

চিলমারীতে নদী ভাঙ্গন রোধে এলাকাবাসীর সহযোগীতায় বাঁধ নির্মাণ শুরু

ফেব্রু ২৪, ২০২৪

সাওরাত হোসেন সোহেল:
বর্ষা শুরুর আগেই কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার চিলমারী ইউনিয়নকে নদী ভাঙ্গন থেকে রক্ষা করতে গাছের পাইলিং এর মাধ্যমে বাঁধ নির্মান শুরু। ইউপি চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলামের উদ্যোগে স্থানীয় মানুষ ও ইউনিয়ন পরিষদের সহায়তায় ভাঙ্গন রোধে ইউনিয়নের পশ্চিম তীরে প্রায় ৩কি: মি: জুড়ে চলছে গাছের পাইলিং এর মাধ্যমে বাঁধ নির্মানের কাজ। আশার আলো জেগেছে এলাকাবাসীর মাঝে। সরকারের কাছে সাহায্যসহ ভাঙ্গন থেকে বাঁচার জন্য দাবি জানান স্থানীয়রা। ভাঙ্গন রোধে প্রকল্প দেয়ার আশ^াস পানি উন্নয়ন বোর্ডের।
জানা গেছে, জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে সারা বছর ভাঙ্গছে নদী, পরিবর্তন হচ্ছে নদীর গতিপথ ফলে প্রতি বছর হাজার হাজার হেক্টর জমি নদী গর্ভে বিলিন হচ্ছে। ভাঙ্গনে বাড়িঘর জমিজমা হারিয়ে নি:স্ব হচ্ছে শতশত পরিবার। ভাঙ্গন থেকে রক্ষা পাচ্ছেনা কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী উপজেলার চিলমারী ইউনিয়ন। চিলমারী ইউনিয়নটি নদী ভাঙ্গনের শিকার হয়ে নদীর মাঝে অবস্থিত হলেও এখনো ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ড একটি ভূখন্ডে অবস্থিত। গত বর্ষা মৌসুমে ব্রহ্মপুত্রের ভাঙ্গনের তীব্রতার কারনে চিলমারী ইউনিয়নের শতশত হেক্টর ফসলি জমিসহ বাড়িঘর নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যায়, ভাঙ্গনের মুখে পড়ে পুরো ইউনিয়ন। ইউনিয়নটিকে ভাঙ্গন থেকে রক্ষার জন্য সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান মো: আমিনুল ইসলাম কাজির উদ্যোগে এলাকাবাসী ও ইউনিয়ন পরিষদের সহযোগীতায় বর্ষার পূর্বেই ব্রহ্মপুত্রের ভাঙ্গন থেকে বাঁচতে গাছের পাইলিং এর মাধ্যমে বাঁধ নির্মানের কাজ শুরু করেছেন স্থানীয়রা। এলাকাবাসী বকুল জানান, জলবায়ু পরির্বতনের কারনে নদীর গতিপথ পরির্বতন হচ্ছে এবং সারা বছরে নদী ভাঙ্গছে। স্থানীয় মাইদুল, জহুরুল, আজিরনসহ অনেকে জানান, গত ২ বছরে প্রায় ২ থেকে ৩ হাজার হেক্টর জমি নদী গর্ভে বিলিন হওয়ার সাথে শতশত পরিবার বাড়িঘর হারিয়ে আজ নি:স্ব, তারা আরো জানান, চলতি মৌসুমে গাছের পাইলিং এর মাধ্যমে বাঁধ নির্মান হচ্ছে, আশা করছি আল্লাহ রহমতে ভাঙ্গন থেকে আমরা রক্ষা পাবো, এসময় তারা সরকারের সহায়তা কামনা করেন। চিলমারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো: আমিনুল ইসলাম বলেন, চলতি মৌসুমে ভাঙ্গন রোধে কাজ শুরু না করলে ভাঙ্গনের তীব্রতার কারনে পুরো ইউনিয়ন নদী গর্ভে বিলিনের সাথে সাথে এই ইউনিয়নবাসী ছিন্নভিন্ন হয়ে পড়বে, তাই ইউনিয়ন পরিষদ ও স্থানীয় মানুষের সহযোগীতায় ভাঙ্গন রোধে গাছের পাইলিং দেয়া হচ্ছে, এছাড়াও পানি উন্নয়ন বোর্ডে আবেদন করেছি ভাঙ্গন রোধে প্রকল্পটি পাস হলে আশা করছি আমরা ভাঙ্গন থেকে এই ইউনিয়নকে রক্ষা করতে পারবো ইনশাআল্লাহ। এর আগে ভাঙ্গন রোধে পাইলিং এর উদ্বোধন করা হয়, এসময় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো: রুকুনুজ্জামান শাহিন, ভাইস চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান আজাদ জামান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আছমা বেগম, থানাহাট ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক মিলন, চিলমারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম, উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগ আহবায়ক আবু হোসাইন সিদ্দিক রানা, ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যসহ স্থানীয় মানুষজন উপস্থিত ছিলেন।