• জুলাই ১৫, ২০২৪ ১০:২৯ অপরাহ্ণ

রংপুরে মুক্তিযোদ্ধার নাতীকে বলৎকার করার অভিযোগ

জুলা ১০, ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক:
রংপুর শহরের প্রাণ কেন্দ্রে মুক্তিযোদ্ধার শিশু নাতিকে বলাৎকার করার অভিযোগ উঠেছে। রংপুর সিটি কর্পোরেশন ২৫ নং ওয়ার্ডে এই ঘটনা ঘটে। শিশুটির পরিবার বিচার চেয়ে প্রভাবশালীদের হুমকির মুখে চরম উৎকন্ঠায় দিনাতিপাত করছে।
পরিবার সূত্রে জানা যায, রংপুর সিটি করপোরেনের ২৫ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আঃ রশিদ এর পুত্র মো: সোহেল রানা ৩৫, মোবাইল: ০১৭৩৪-৮৯৮৬৯৫, তার নাবালক শিশু পুত্র মো: জাহান (০৭) কে ২৬ জুন সন্ধ্যা অনুমান ৭:০০ ঘটিকার সময় চকলেট ও চিপস্ এর প্রলোভন দেখিয়ে দীর্ঘদিন যাবত দোকানের শার্টার রন্ধ করিয়া বলাৎকার করে। বিষয়টি তার বড় ছেলে (১০) স্বচক্ষে দেখিয়া তার পিতা-মাতা’কে অবগত করেন। এ বিষয়ে নিরীহ পিতা-মাতা বিষয়টি থানায় অভিযোগ করার উদ্দেশ্যে কোতয়ালী মেট্রো থানায় যাওয়ার উদ্যোগ গ্রহন করিলে ২৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলার “ফুলু” নিরীহ পিতা- মাতাকে বাধা প্রদান করেন এবং তাদের এই মর্মে আশ্বাস দেন যে- শাহীপাড়া গ্রামের স্থানীয় সকল জনগনের সম্মুখে বলাৎকারকারী মো: হানিফ এর বিচার করিবেন। কিন্তু কাউন্সিলার “ফুলু” সুকৌশলে বলাৎকারকারীর মো: হানিফ এর পক্ষ নিয়া শালবন ইন্দ্রামোড়স্থ স্থানীয় কতিপয় ব্যক্তি আমজাদ চৌধুরী, টুটুল শুধুমাত্র এই ৩ জন’কে সাথে নিয়া অত্যন্ত গোপনীয়তা অবলম্বন করিয়া বলাৎকারকারী মো: হানিফ’কে কান ধরে উঠ বস করিয়ে বিষয়টি মিমাংসা করিয়া ফেলেন। যা সম্পূর্নরূপে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের আইন বহিভূর্ত পরিপন্থি ও ক্ষমতার অপব্যবহারমাত্র। এই বিষয় নিয়ে আর যেন কোন কথা-বার্তা না হয় মর্মে নিরীহ পিতা-মাতা’কে কাউন্সিলার “ফুলু”সহ এই ৩ জন ব্যক্তি হুমকি প্রদান করেন। বর্তমানে তাদের এই হুমকির কারনে নিরীহ পিতা- মাতা ও পরিবার পরিজন ভয়ে আতংকিত। উল্লেখ্য যে-বলাৎকারকারী মো: হানিফ দীর্ঘদিন যাবত সরকারী জায়গা অবৈধভাবে দখল করিয়া পুরাতন টায়ার ‘বিক্রি’র অন্তরালে এই সকল ঘৃনিত, ন্যাক্কারজনক ও অসামাজিক কার্যকলাপ দীর্ঘদিন যাবত করিয়া আসিতেছে। বলাৎকারকারী মো: হানিফ, শীর্ষ সন্ত্রাসী মেরিল সুমনের পিতা হওয়ার ভয়ে এলাকাবাসী কেউ কিছু বলার সাহস পায় না। বীর মুক্তিযোদ্ধা’র পরিবারের সন্তান রংপুরের শীর্ষ সন্ত্রাসী মেরিল সুমনের পিতা মো: হানিফ কর্তৃক বলাৎকারের শিকার হয়েছে বিষয়টি মেনে নেয়া ভীষন কষ্টকর। উক্ত ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে চাপা ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে এবং থমথমে বিরাজ করছে। যে কোন মুহুর্তে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হতে পারে। এ বিষয়ে এলাকার ১১ জন সচেতন নাগরিক এলাকাবাসীর পক্ষে জেলা প্রশাসক, পুলিশ কমিশনার মেট্রো, উপ কমিশনার গোয়েন্দা বিভাগ, অফিসারস ইনচার্জ কোতয়ালী মেট্রো থানা ও সভাপতি, রংপুর মেট্রো পলিটন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাজট্রিজগণকে বলৎকারের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন এবং তার বিরুদ্ধে শাস্তিযোগ্য আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য জোড় দাবী জানিয়েছেন। অপর দিকে সাজ্জাদ হোসেন, সুলতান সালাহ উদ্দিন ও রফিকুল ইসলাম দুঃখ ও আবেগ কন্ঠে প্রতিনিধিকে বলেছেন এই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর টাকার বিনিময়ে ঘুয়ের বিনিময়ে এত বড় একটা ন্যাক্কারজনক ঘটনাকে শাক দিয়ে মাছ ঢাকার মতো অবস্থা সৃষ্টি করেছেন। সর্বকালের শ্রেষ্ঠ সন্তানের নাতীর বলৎকারের ন্যায় বিচার না হলে জাতি কলংখিত হবে। তাই তারা দাবী করেছেন এই ঘুষখোর, দুর্নীতিবাজ দীর্ঘ দিনের ক্ষমতা অপব্যবহারকারী কাউন্সিলর সহ ধর্ষকের বিরুদ্ধে রাষ্ট্র বাহাদুর ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নিকট আকুল আবেদন জানাইতেছে।