• জানুয়ারি ২৯, ২০২৩ ১২:৪৩ অপরাহ্ণ

ফুলবাড়ী প্রতিনিধি:
কোথাও ভূয়া ম্যাজিস্ট্রেট, কোথাও ভূয়া সাংবাদিক, কোথাও আবার ঔষধ প্রশাসনের কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণা করে টাকা হাতিয়ে নিতেন উপজেলার বিভিন্ন লোকালয়ে। কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে তিন জনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ্দ করেছে স্থানীয়রা। এসময় তাদের দুই সহযোগী কৌশলে পালিয়ে যায়। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার ভাঙ্গামোড় ইউনিয়নের শিমুলতলা বাজারে সোমবার রাত ৮টার দিকে। এব্যাপারে ফুলবাড়ী থানায় একটি প্রতারণার মামলা দায়ের করা হয়েছে।
স্থানীয় আনিছুর রহমান ও মজিবর রহমান জানান, সোমবার রাত ৮টার দিকে পাঁচ সদস্যের একটি প্রতারক দল শিমুলতলা বাজারের মজিবর রহমানের ঔষধের দোকান ও আয়শা ফার্মেসিতে গিয়ে নিজেদেরকে ভ্রাম্যমান আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট। অন্য দোকানে ঔষধ প্রশাসনের কর্মকর্তা ও সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে দোকানের ড্রাগ লাইসেন্স দেখতে চান। দোকানদার লাইসেন্স দেখাতে ব্যর্থ হলে তারা দুই দোকানের মালিকের কাছে বিশ হাজার করে দাবী করেন। আশরাফুলের চায়ের দোকানে গিয়ে অপরিস্কার পরিচ্ছন্নের অজুহাতে ৫ হাজার টাকা আদায় করেন। এ সময় তাদের অসংলগ্ন কথা-বার্তায় দোকানদের সন্দেহ হলে উপস্থিত শতশত জনতা তাদের আটক করে পুলিশে খবর দেন। এসময় কৌশলে তাদের দুই সহযোগী পালিয়ে যায়। পরে ফুলবাড়ী থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের আটক করে থানায় নিয়ে আসেন।
আটকৃতরা হলেন, জেলার উলিপুর উপজেলার যমুনা ডালিয়া পশ্চিমপাড়া গ্রামের মৃত নুর মোহাম্মদের ছেলে এবং শীর্ষ নিউজ-২৪ এর কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধি পরিচয় দানকারী সিরাজুল ইসলাম(৩০), একই উপজেলার মালতিবাড়ী মোল্লাপাড়া গ্রামের আব্দুল আজিজের ছেলে ঔষধ প্রশাসনের কর্মকর্তা পরিচয় দানকারী মিঠু মিয়া (৩২) ও নাগেশ্বরী উপজেলার ভিতরবন্দ এলাকার মনির উদ্দিনের ছেলে এবং সিএনএন ওয়াল্ড-২৪ এর রংপুর বিভাগীয় প্রতিনিধি পরিচয় দানকারী ও ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল আজিজ মিয়া (৩৫)। এসময় সেখান থেকে পালিয়ে যায় কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার সবুজপাড়া গ্রামের গোলজার হোসেনের ছেলে আব্দুস ছালাম (৩৬) ও উলিপুর ধরনীবাড়ী এলাকার আবুল কাশেমের ছেলে মোস্তাফিজার রহমান বাবু মিয়া (২৮)।
ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ ফজলুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আটক তিনজনসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে থানায় একটি প্রতারণার মামলা দায়ের করা হয়েছে।