• বৃহঃ. অক্টো ২৯, ২০২০

ফুলবাড়ীতে বখাটে কর্তৃক গৃহবধু ধর্ষণ

অক্টো ১৪, ২০২০

ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি:
বেড়েই চলছে ধর্ষণ। ধর্ষক আতাউর রহমান এলাকায় প্রভাবশালী হওয়ায় বারবার পার পেয়ে যাচ্ছেন তিনি। গ্রাম্য শালিশে শেষ। কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে দুই সন্তানের এক গৃহবধুকে জোড় পূর্বক ধর্ষণ করেছে একই গ্রামের লম্পট বখাটে যুবক। ঘটনাটি ঘটেছে, উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের পূর্ব-ধনীরাম গ্রামে।
গত বুধবার দুপুরে ওই গ্রামে গিয়ে গৃহবধুর পরিবার ও স্থানীয়রা জানায়, গৃহবধুর স্বামী দীর্ঘদিন কাজের সুবাধে কুমিল্লায় থাকেন। স্বামী বাড়ীতে না থাকায় একই গ্রামের জাহেদুল ইসলামের লম্পট বখাটে ছেলে আতাউর রহমান (২৪) তাকে মোবাইল ফোনে প্রায় ১৫ দিন থেকে উত্যাক্ত করে আসছে। এক পর্যায়ে গত মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২ টার দিকে গৃহবধুর ঘরের দরজা কৌশলে খুলে প্রবেশ করে মুখ চেপে ধরে জোড়পূর্বক ধর্ষণ চালায়। এ সময় গৃহবধুর শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতসহ নাকের ফুল ভেঙ্গে ফেলে ওই যুবক। পরে তার আত্ম চিৎকার শুনে বৃদ্ধ শ্বাশুড়ী ধর্ষককে আটকের চেষ্টা করলে ধর্ষক গৃহবধুর শ্বাশুড়ীকে মুখ চেপে মারপিট ও প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে পালিয়ে যেতে স্বক্ষম হয়।
ধর্ষণের শিকার গৃহবধু জানান, আমার উপর যে পাশবিক অত্যাচার করেছে আতাউর। আমি তার উপযুক্ত বিচার চাই। নইলে আমার জীবন কি হবে আমি নিজে জানি না।
স্থানীয় মো. বাছের আলী ও আবুল হোসেন ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, ধর্ষক আতাউর রহমানের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী করছি। সে এর আগেও একবার এক মেয়েকে ধর্ষণ করে। পরে গ্রাম্য শালিশে তার চল্লিশ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।
বড়ভিটা ইউনিয়নের পূর্বধনীরাম ২ নং ওয়ার্ডের মেম্বার উজির আলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনার ত্রীব প্রতিবাদ জানাচ্ছি। সেই সাথে অভিযুক্ত ব্যক্তির উপযুক্ত বিচারের দাবী করছি।
লম্পট ধর্ষক আতাউর রহমানের সাথে মোবাইল ফোনে কথা হলে তিনি বলেন, আমি ধর্ষণ করিনি, তারা আমাকে ফাঁসানোর জন্য চেষ্টা করছেন। এই বলে তিনি মোবাইল ফোন কেটে দেন।
ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) সারওয়ার হোসেন জানান, ঘটনাটি শুনেছি পুলিশ ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।