• বৃহঃ. অক্টো ২৯, ২০২০

ফুলবাড়ীতে স্বাক্ষর জাল করে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

সেপ্টে ১৫, ২০২০

রবিউল ইসলাম বেলাল, ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম):
কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে গুচ্ছ গ্রাম সমিতির গরু মোটাতাজা করণ প্রকল্পের ঋনের টাকা বিতরণের নামে স্ট্যাম্প জাল স্বাক্ষর করে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে উপজেলা বিআরডিবি’র পল্লী প্রগতির গ্রাম সংগঠক সাইফুর রহমান, উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা ও সহকারী পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। এ ব্যাপারে উপজেলার বিআরডিবির সভাপতি, সহ-সভাপতিসহ উপকারভোগীরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
অভিযোগে জানাগেছে, উপজেলার শিমুলবাড়ী ইউনিয়নের জোতিন্দ্রনারায়ন গুচ্ছ গ্রাম পুরুষ ও মহিলা দলের ঋন প্রদানের নাম করে সুবিধাভোগীর মাঝে পুরুষ দল ১৬ জন ও মহিলা দল ১৮ জন গ্রুপ করে প্রত্যেকে ১৬ হাজার টাকা করে ৫০টাকার স্ট্যাম্পে মাষ্টার রোল তৈরী করে দু গ্রুপে ৫,৪৪,০০০ হাজার টাকা বিতরণ দেখানো হয়। কিন্তু দু’ গ্রুপের মহিলা ও পুরুষ মিলে সাত জনের নামে ভুয়া মাষ্টার রোল ও জাল স্বাক্ষর করে উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তার জোগসাজসে মোট ১ লক্ষ ১২ হাজার টাকা আত্মসাত করেছেন বলে ভোক্তভোগীরা অভিযোগ করেছেন।
ভুক্তভোগী মোশারফ (৩৫), নুর ইসলাম, শফিকুল, নাছিমা ও আর্জিনা বেগম জানান, স্ট্যাম্পে ও মাষ্টার রোলে আমাদের সই জাল করে আমাদের টাকা না দিয়ে অফিসাররা তুলে নিয়েছে। এমনকি আমাদের কোন প্রকার পাস বইও দেয়নি।
এ ব্যাপারে বিআরডিবির (ইউসিসি) সভাপতি মো. মজিবর রহমান জানান, সুবিধাভোগীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে সরেজমিনে গিয়ে তদন্ত করে আমরা দেখতে পাই, সাত জনের নামে নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে জাল স্বাক্ষর ও ভুয়া মাষ্টার রোল বানিয়ে তাদের নামে ঋন বিতরণ দেখালেও বাস্তবে তারা কোন ঋনের টাকা পায়নি। এ বিষয়ে ওই কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে শাস্ত মুলক ব্যবস্থা নেয়াসহ তদন্ত প্রতিবেদন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে পাঠানো হয়েছে।
প্রকল্পে দায়িত্বে থাকা উপজেলা বিআরডিবি’র (ইউসিসি) পল্লী প্রগতির গ্রাম সংগঠক সাইফুর রহমানের সাথে মোবাইলফোনে কথা হলে জানান, আমি জাল স্বাক্ষর করে কোনো টাকা-পয়সা উত্তোলন করিনি। আমার নামে মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদুর রহমান জানান, এ বিষয়য়ে আমি অবগত হয়েছি। তদন্তের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।