• ডিসেম্বর ১, ২০২২ ৮:৪৯ পূর্বাহ্ণ

কুড়িগ্রামে এসএসসি প্রশ্ন ফাঁসের সাথে জড়িত জাল সনদধারী শিক্ষক

অক্টো ৩, ২০২২

স্টাফ রিপোর্টার:
কুড়িগ্রামে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধনের জাল সনদ দিয়ে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চাকরি করার অভিযোগ বেশ পুরোনো। এনিয়ে তদন্ত করার পর ব্যবস্থা নেবার সুপারিশ করা হলেও তার বাস্তবায়ন নেই। বহাল তবিয়তে চাকরি করছেন জাল সনদধারীরা। সম্প্রতিক এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় আবারও আলোচনায় এসেছে বিষয়টি।
কুড়িগ্রামে এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় দেশ জুড়ে চলছে তোলপাড়। প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় কয়েকজন শিক্ষক গ্রেফতার হওয়ায় শিক্ষকদের অনিয়ম,দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়াসহ বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জাল সনদ দিয়ে চাকুরি করার অভিযোগ দীর্ঘদিনের। এনিয়ে তদন্ত হলেও কাজের কাজ কিছু হয়নি। গেল বছর এনটিআরসি কর্তৃক ১০৫জন শিক্ষকের সনদের সঠিকতার তথ্য প্রকাশ করে। সেখানে ৭৭জন শিক্ষক জাল সনদ তথ্য উঠে আসে। এর প্রেক্ষিতে প্রয়োজনী ব্যবস্থা নেবার সুপারিশ করা হলেও তা আলোর মুখ দেখেনি। উল্টো জাল সনদধারীরা বেতন ভাতা নিয়মিত তুলে আসছেন। এসএসসি প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় ৬জনকে ইতিমধ্যে পুলিশ গ্রেফতার করে তাদেরকে রিমান্ড নিয়েছেন। গ্রেফতারকৃত ৬জন হলেন,ভূরুঙ্গামারী নেহাল উদ্দিন পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব লুৎফর রহমান,ইংরেজি বিষয়ের সহকারী শিক্ষক আমিনুর রহমান, ইসলাম শিক্ষার শিক্ষক জোবাইর হোসাইন,কৃষি বিজ্ঞানের শিক্ষক হামিদুল ইসলাম, বাংলা শিক্ষক সোহেল চৌধুরী ও পিয়ন সুজন মিয়া। এই ঘটনায় ওই বিদ্যালয়ের অফিস সহকারী আবু হানিফ(৪৮)পলাতক আছেন। সে নাগেশ^রী রামখানা ইউনিয়নের পূর্ব রামখানা গ্রামের বাসিন্দা মৃত: বাহার আলী পুত্র। এদের সবাইকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছে বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটি।
অনুসন্ধানে দেখাযায়,ভূরুঙ্গামারী নেহাল উদ্দিন পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লুৎফর রহমানের স্বাক্ষরিত ২৭(৪৬৮)/২০১৩ স্বারকে ১৫ জুন ২০১৩সালে ইসলাম ধর্ম পদে অস্থায়ী ভাবে জোবাইর হোসাইনকে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। একই বছরের ১০জুন নিয়োগ নির্বাচনী বোর্ডের সুপারিশ এবং বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির ১৪জুন সিদ্ধান্ত মোতাবেক এই নিয়োগ প্রদান করে। পত্রে ৭দিনের মধ্যে যোগদান করার জন্য বলা হলেও শিক্ষক জোবাইর হোসাইন ১৬জুন সকালে যোগদান করেন। এরপর ওই শিক্ষকের এমপিও করার জন্য তথ্য প্রেরণ করা হলে সেখানে ধরা পড়ে জোবাইর হোসাইনের শিক্ষক নিবন্ধন সনদটি ভুয়া। বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ)র পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ও প্রত্যয়ন-৩এর সহকারি পরিচালক তাজুল ইসলাম স্বাক্ষরিত একটি শিক্ষক নিবন্ধন সনদ যাচাই সনদে তা প্রকাশ পায়। চলতি বছরের ১০এপ্রিল স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে-৩৭.০৫.০০০০.০১০.০৫.০০২.২০.৩৫৮নং স্বারকে বলা হয়,ভূরুঙ্গামারী নেহাল উদ্দিন পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ইসলাম শিক্ষার শিক্ষক জোবাইর হোসাইনের শিক্ষক নিবন্ধন সনদে দেখাযায়,২০১২সালে বাধ্যতামূলক-৪৮ এবং অপশনাল-৫০নম্বরসহ গড় ৫০নম্বর পেয়ে ৮ম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় পাশ করেন। তার রোল-৩২১১০৩৩৫ নম্বরে শিক্ষক জোবাইর হোসাইনের পরিবর্তে ফরিদপুর জেলার সাধারণ বিজ্ঞানের সহকারি শিক্ষক মো: কাওছার খান তথ্য পাওয়া যায়। শিক্ষক জোবায়ের হোসাইন এনটিআরসি সনদটি জাল ও ভুয়া হওয়ায় তার বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে থানায় মামলা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবার জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়। প্রাপক হিসেবে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে চিঠি দেয়া হয়। কিন্তু এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের মূল হোতা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আটককৃত লুৎফর রহমান বিষয়টি গোপন রাখেন।
এছাড়াও অনুসন্ধানে আরও দেখাযায়,জেলার ফুলবাড়ি উপজেলার সুজনের কুঠি রুহুল আমিন দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক নাসরিন সুলতানা কম্পিউটারের শিক্ষকের এনটিরআরসি সনদটিও ভুয়া। অথচ এই বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুমন দাস লিখিতভাবে প্রয়োজনী ব্যবস্থা নেবার সুপারিশ করলেও তা আজও কার্যকর হয়নি। এই শিক্ষক এখনও নিয়মিত বেতন ভাতা উত্তোলন করছেন। নাসরিন সুলতানা ২০০৯সালে চাকুরিতে প্রবেশ করলেও তার এমপিও হয় ২০১০সালে। তার ১২১১১৫৪৩নং রোল অনুযায়ী নিবন্ধন সনদে বাধ্যতামূলক-৬০ এবং অপশনাল-৪০ নম্বরসহ গড়ে ৫০নম্বর পেয়ে কম্পিউটার স্টাডিজ বিভাগ নিয়ে ২০০৮সালে পাশ করেন। অথচ এনটিআরসিএ ২০২১সালে ১০৫জন শিক্ষকের নিবন্ধন সনদের তালিকা প্রকাশ করা হয়। যার স্বারক নং-ডিআইএ/এনটিআরসিএ/ রাজশাহী/৯৭৭ তারিখ-২৯সেপ্টেম্বর ২০১৬। এই স্বারকে সহকারি পরিচালক (শিক্ষাতত্ব ও শিক্ষা মান) লোকমান হোসেন স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয় ১০৫জনের মধ্যে ৭৭জন শিক্ষকের এনটিআরসি সনদ ভুয়া। এরমধ্যে ১০৩নং তালিকায় নাসরিন সুলতানার নিবন্ধন সনদটি জাল হিসেবে বলা হয়। তদন্ত পূবর্ক চলতি বছরের ৩১জানুয়ারি ০৫.৪৭.৪৯১৮.০০০.০২.০৬১.২১.৬৮ স্বারক নম্বরে ওই শিক্ষকের বেতন ভাতা বন্ধের সুপারিশ করে জেলা প্রশাসক বরাবর একটি পত্র দেন ফুলবাড়ি ইউএনও সুমন দাস।
ভূরুঙ্গামারী নেহাল উদ্দিন পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মাহমুদুর রহমান রোজেন শিক্ষক জোবাইর হোসাইনের এনটিআরসি সনদ জাল কিনা আমি জানি না।
একই বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক এটিএম খলিলুর রহমানও জানান,শিক্ষক জোবাইর হোসাইনের এনটিআরসি সনদ জাল কিনা আমার জানা নেই। এই বিষয়ে কোন চিঠি এসেছিল কিনা সাবেক প্রধান শিক্ষক কাউকে বলেওনি।
জাল সনদে অভিযুক্ত শিক্ষক নাসরিন সুলতানা বলেন,এনটিআরসি সনদটি পেয়েছি মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস থেকে ২০০৮-০৯সালে। অনলাইনের মাধ্যমে জানতে পেরেছি সনদটি ভুয়া। তবে এই বিষয়ে শিক্ষা অফিস বা মাদ্রাসা সুপারের কোন লিখিত নির্দেশনা পাইনি।
ফুলবাড়ি ইউএনও সুমন দাস বলেন,নাসরিত সুলতানার বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন সনদটি জাল প্রমাণিত হয়েছে। তার বেতন ভাতা বন্ধের জন্য সুপারিশ করে জেলা প্রশাসক স্যারের নিকট তথ্য দেয়া হয়েছে।
জেলা শিক্ষা অফিসার শামছুল আলম বলেন,জাল সনদধারীদের বিষয়ে এনটিআরসি থেকে সনদ যাচাইয়ের কোন নিদের্শনা আসেনি। তালিকা পেলে সেগুলো যাচাই বাছাই করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সুপারিশ করবেন বলে জানান তিনি।
জেলা মাধ্যমিক কার্যালয় সূত্রে জানাযায়,কুড়িগ্রামের ৯টি উপজেলায় এমপিও ভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে ৫৪৪টি। এরমধ্যে নিম্ন মাধ্যমিক-৩২টি,মাধ্যমিক-২৭০টি,মাদ্রাসা-২০৩টি,স্কুল এন্ড কলেজ-১২টি এবং কলেজ-২৭টি।